1. [email protected] : আরএমজি বিডি নিউজ ডেস্ক :
  2. [email protected] : Emon : Armanul Islam
  3. [email protected] : musa :
মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:০৪ অপরাহ্ন

মুক্তিযোদ্ধা তালিকা নিয়ে শত অনিয়ম ও অভিযোগ

  • সময় শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১
  • ৩২০ বার দেখা হয়েছে

বাংলাদেশে আসন্ন স্বাধীনতা দিবসে প্রথমবারের মত একটি পূর্ণাঙ্গ মুক্তিযোদ্ধার তালিকা ঘোষণা করতে যাচ্ছে সরকার। তার আগে আগামী সপ্তাহেই প্রকাশ করা হবে খসড়া তালিকা।

সরকার বলছে পূর্ণাঙ্গ তালিকা হবে এখন পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধাদের যতগুলো তালিকা হয়েছে, যাচাই-বাছাই করে তার সমন্বয়ে তৈরি করা একটি তালিকা।

বাংলাদেশে মুক্তিযোদ্ধা তালিকা নিয়ে বিভিন্ন সময় নানা ধরনের অনিয়মের অভিযোগ শোনা গেছে। এর মধ্যে ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা সনদ নিয়ে সরকারি সুযোগ সুবিধা গ্রহণের অভিযোগ প্রধানতম।

সরকার বলছে, অনিয়ম ঠেকাতে নানা ধরণের যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে প্রায় দশ হাজারের মত ভুয়া মুক্তিযোদ্ধার সনদ বাতিল করেছে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়।

মুক্তিযুদ্ধ তালিকা নিয়ে অনিয়ম বিতর্ক
ফরিদা খানম সাকী ১৯৭১ সালের ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জিমনেশিয়ামে ডামি রাইফেল নিয়ে প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন।

নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলার চাটখিল গ্রামের বাসিন্দা সাকী মুক্তিযুদ্ধ শুরু হবার পর মে মাসে সীমান্ত পেরিয়ে ভারতের আগরতলায় গিয়ে সামরিক প্রশিক্ষণ নেন।

তিনি সহ সেই দলে মোট আটজন নারী সদস্য ছিলেন। প্রশিক্ষণ শেষে মোট তিনটি সরাসরি যুদ্ধে অংশ নেন তিনি। আক্ষেপ করে সাকী বলছিলেন, তাদের গ্রামে যারা মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন তাদের কমবেশি সবাইকে তারা চেনেন। অথচ তাদের গ্রাম থেকে মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন অনেক অ-মুক্তিযোদ্ধা।

“আমরা যখন যুদ্ধে যাই এত মুক্তিযোদ্ধা দেখি নাই। আমাদের গ্রামে একটা বাড়িতে ১ বা দুইজন মুক্তিযোদ্ধা ছিল, সেটাকে ১১ জন বানানো হয়েছে। এটা সাম্প্রতিক ঘটনা না, ২০০৪ সালে করা হয়েছিল এটা। ওই সময়ে সবচেয়ে বেশি অ-মুক্তিযোদ্ধাকে মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় জায়গা দেয়া হয়েছে।”

ফরিদা খানম সাকী বাংলাদেশ মহিলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের যুগ্ম-সম্পাদক।

তিনি বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, এখন ওই তালিকা যাচাই বাছাই হচ্ছে।

চট্টগ্রাম শহরে ১৯৭১ সালে মুজিব বাহিনীর একজন কমান্ডার ছিলেন ডা. মাহফুজুর রহমান।

তিনি বলছিলেন ২০২০ সালের শেষ দিকে চট্টগ্রামের মুজিব বাহিনীর কয়েকজন কমান্ডার মহানগর মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকার মাত্র এক চতুর্থাংশ মুক্তিযোদ্ধাকে চিনতে পেরেছেন।

“আমরা ১০/১২ জন কমান্ডার মিলে বসছিলাম চট্টগ্রাম মহানগর মুক্তিযোদ্ধার তালিকা নিয়ে, সেখানে ৬৫০ জনের মধ্যে আমরা দেড়শো জনকে চিনছি।

এখন আমাদের চেনার বাইরে মুক্তিযোদ্ধা থাকতে পারে। কিন্তু চাইলে খুব সহজে চিহ্নিত করা যায়, কারণ যে দাবি করছে, সে তো কোন না কোন কমান্ডে যুদ্ধ করেছে। চট্টগ্রাম শহরে মোট ২৩টা গ্রুপ ছিল, এর কোন না কোনটার সদস্য তো সে হবে!”

ডা. রহমান বলেছেন এ বিষয়ে বিভিন্ন সময়ে কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে চিঠি লেখা হয়েছে, কিন্তু যাচাই হবে এমন আশ্বাসের বাইরে ফলাফল তেমন পাওয়া যায়নি।

সূত্র: বিবিসি বাংলা

শেয়ার করুন

এই শাখার আরো সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © RMGBDNEWS24.COM
Translate »