1. [email protected] : আরএমজি বিডি নিউজ ডেস্ক :
  2. [email protected] : Emon : Armanul Islam
  3. [email protected] : musa :
শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৯:৩১ পূর্বাহ্ন

বিজ্ঞাপনের মোজেজা

  • সময় বুধবার, ৩ মার্চ, ২০২১
  • ১৪০ বার দেখা হয়েছে

যা-কিছু আমরা খাই, সবকিছু হচ্ছে এই বিজ্ঞাপনের জোরে বা প্রচারের জোরে।

এই যে হরলিক্স খেলে কী হয়- বাচ্চার ব্রেন ধারালো হয়, তার কোমর শক্ত হয়। সে কী হয়- লম্বা হয়। ব্যস! খাও হরলিক্স।

দেখলাম যে, ভারতের একজন সুপারস্টার না মেগাস্টার বিজ্ঞাপন দিলো, একটা সালসার বিজ্ঞাপন- হাম খাতা, তুম ভি খাও, আও! আও!

ঐ সালসার বিক্রি বেড়ে গেল। আমার নায়ক কী খাচ্ছে, আমিও খাই।

সাধারণ মানুষ গভীরে ঢোকে না

কেন- কারণ সাধারণ মানুষ যা শোনে, যা দেখে, তার গভীরে ঢুকতে চায় না। যা দেখল, যা শুনল, ভাবে যে, হাঁ, এই ঠিক আছে।

বিজ্ঞাপনের যে মোজেজা কত-

একবার হলো, একলোক তার বাড়ি নিয়ে বিরক্ত হয়ে গেল। বাড়ি তার একদম ভালো লাগছে না। এটা বিক্রি করে ফেলবে। তো আরেকজন বুদ্ধি দিলো যে, ঠিক আছে, এটাকে বিক্রি করলে এবং ভালো দাম পেতে হলে বিজ্ঞাপনী ফার্মকে দাও। সে দেখল, হ্যাঁ, তার এক বন্ধু এক বিজ্ঞাপনী প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে। তাকে বলল, দেখো, আমি এই বাড়িটা বিক্রি করে দেবো। তুমি এটার একটা বিজ্ঞাপনের ব্যবস্থা করো। বলল, এটা কোনো ব্যাপার না, করে দেবো। শুধু আমাদের একটা কমিশন দিতে হবে বা বিজ্ঞাপনের একটা চার্জ দিতে হবে। বলল যে, হাঁ, দেবো।

বিজ্ঞাপন শুনে উপলব্ধি

দিন পনেরো পরে সে ঐ বাড়ির বিজ্ঞাপন বা ছবিসহ বাড়ির বিজ্ঞাপনের ভাষা নিয়ে এসেছে। সব পড়ে শোনাচ্ছে যে, এই এই এই এই। তো শুনে সে জিজ্ঞেস করছে, এটা কার বাড়ি! বলল, ঐযে তুমি বলেছিলে, ঐযে তোমার বাড়ি…, তোমার বাড়ি। বলল যে, আমার বাড়ি! আমার বাড়ি এত সুন্দর! না, তাহলে আমি এটা বিক্রি করব না।

বন্ধু বলল, এই যে… আমি যে… এত সব… কোম্পানি যে এটা করল, এটার চার্জ? বলল, চার্জ আমি দিয়ে দিচ্ছি কিন্তু বাড়ি আমি বিক্রি করব না। এত সুন্দর বাড়ি আমার!

স্বামী বা স্ত্রীকে নিয়ে…

অতএব কারো যদি হাজবেন্ডকে পছন্দ না হয় বা ওয়াইফকে পছন্দ না হয়, কী করবেন- বিজ্ঞাপনী প্রতিষ্ঠানকে হাজবেন্ডের বিবরণ বা ওয়াইফের বিবরণ জানিয়ে যে, আমি আমার ওয়াইফকে আরেকজনের হাতে তুলে দিতে চাচ্ছি, আমি রাখতে চাচ্ছি না বা হাজবেন্ডকে আর রাখতে চাচ্ছি না, আরেকজনের হাতে তুলে দিতে চাচ্ছি। একটা ভালো বিজ্ঞাপন করে দাও।

সে যখন বিজ্ঞাপন নিয়ে আসবে আপনার অনুমোদনের জন্যে, ওটা শোনার পরে আপনি এত খুশি হবেন, বলবেন যে, নাহ! এই স্বামী আমি জীবনে ছাড়ব না বা এই স্ত্রী আমি জীবনে ছাড়ব না।

বেশি বাগাড়ম্বর বা কথার ফুলঝুরি

আসলে সমস্যাটা কোথায়- সমস্যা হচ্ছে আমরা অসাড় কথায় প্রভাবিত হই বেশি সবসময়। কানকথায় প্রভাবিত হই বেশি, অন্যের বলা কথায় প্রভাবিত হই বেশি। আপনজনের কথায় আমরা প্রভাবিত হই সবচেয়ে কম।

যে আপনার শুভাকাঙ্ক্ষী তার কথায় আপনি প্রভাবিত হবেন কম। কারণ সে-তো সত্য কথা বলবে এবং সত্যটা সবসময় কী হয় না- ভালো লাগে না। সত্যটা সবসময় কী হয়- সত্য হয়।

আর প্রতারকের ভাষা সব সময় মিষ্টি হয়। ওখানে বাগাড়ম্বরটা অনেক বেশি থাকে। আর সাধারণ মানুষ এই বাগাড়ম্বরে প্রভাবিত হয় সবচেয়ে বেশি। সমস্যা হচ্ছে এই। আর কোথাও না।

[০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, প্রজ্ঞা জালালি, আইডিইবি ভবন, ঢাকা]

শেয়ার করুন

এই শাখার আরো সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © RMGBDNEWS24.COM