1. admin@hostpio.com : আরএমজি বিডি নিউজ ডেস্ক :
  2. azmulaziz2021@gmail.com : Azmul Aziz : Azmul Aziz
  3. musa@informationcraft.xyz : musa :
শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১, ০৬:৩৭ পূর্বাহ্ন

বায়াত/ সঙ্ঘ

  • সময় মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ৫৯ বার দেখা হয়েছে

৪৫০.
আমি নবীজীর (স) নিকট বায়াত (অলঙ্ঘনীয় শপথ) করি নামাজ কায়েম, যাকাত আদায় এবং প্রত্যেক মুসলমানের সাথে সদাচরণের।
—জারির ইবনে আবদুল্লাহ (রা); বোখারী, মুসলিম

৪৫১.
আমরা একদল সাহাবী রসুলুল্লাহর (স) কাছে শপথ করলাম : ১. সুখে-দুঃখে আমরা তাঁর কথা শুনব, তাঁকে মেনে চলব। ২. বিতর্ক করব না। ৩. সবসময় সত্যের ওপর অটল থাকব। ৪. নিন্দুকের নিন্দাকে উপেক্ষা করে আল্লাহর পথে নিরলস পরিশ্রম করে যাব।
—উবাদা ইবনে সামিত (রা); বোখারী, মুসলিম

৪৫২.
আমরা যখন নবীজীর (স) আনুগত্যের বায়াত বা শপথ করতাম তখন তিনি বলতেন : যা তোমরা অনুসরণ করতে সক্ষম, সে বিষয়ে তোমাদের আনুগত্য ফরজ।
—আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা); বোখারী, মুসলিম

৪৫৩.
যে আমার [নবীজী (স)] আনুগত্য করল, সে আল্লাহর আনুগত্য করল। যে আমাকে অমান্য করল, সে আল্লাহকে অমান্য করল। যে প্রাজ্ঞ নেতার আনুগত্য করল, সে আমার আনুগত্য করল। আর যে প্রাজ্ঞ নেতাকে অমান্য করল, সে আমাকেই অমান্য করল। প্রাজ্ঞ নেতা তোমাদের জন্যে ঢাল স্বরূপ।
—আবু হুরায়রা (রা); বোখারী, মুসলিম

৪৫৪.
যদি কেউ প্রাজ্ঞ নেতার (ইমামের) নিকট বায়াত করে, তার হাতে হাত রাখে, অন্তর তাকে নিবেদন করে, তবে সম্ভব সবক্ষেত্রে তাকে অবশ্যই অনুসরণ করবে। যদি কেউ সেই প্রাজ্ঞ নেতার বিরোধিতা করে, তবে তোমরা তাকে আঁস্তাকুড়ে নিক্ষেপ করবে।
—আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা); মুসলিম

৪৫৫.
আমার পর যারা আমার খলিফা মনোনীত হবে, তোমরা তাদের সাথে তোমাদের বায়াত পূর্ণ করবে (অঙ্গীকার রক্ষা করবে)। তাদের পূর্ণ আনুগত্য করবে এবং আল্লাহর কাছে সবসময় প্রার্থনা করবে। খলিফাদের কাজের জন্যে আল্লাহ নিজেই তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করবেন।
—আবু হুরায়রা (রা); বোখারী, মুসলিম

৪৫৬.
এমনকি কোনো কদাকার নিগ্রো দাসকেও যদি তোমাদের নেতা মনোনীত করা হয়, তবুও তার আনুগত্য করো।
—আনাস ইবনে মালেক (রা); বোখারী

৪৫৭.
নেতাকে অনুসরণ করবে—তার নির্দেশ তোমার পছন্দ হোক বা না হোক। তবে তিনি যদি আল্লাহর কোনো অনুশাসন ভঙ্গ করার নির্দেশ দেন, তুমি তা মানতে বাধ্য নও।
—আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা); বোখারী, মুসলিম

৪৫৮.
নীতিবান শাসক বা প্রাজ্ঞ নেতার মধ্যে অপ্রীতিকর কিছু দেখতে পেলে ধৈর্যধারণ করো। তার কাছ থেকে দূরে সরে গিয়ে মৃত্যুবরণ করলে তা হবে জাহেলিয়াতের মৃত্যু।
—আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা); বোখারী, মুসলিম

৪৫৯.
সুসময়ে বা দুঃসময়ে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে বা অনিচ্ছাসত্ত্বেও নেতার নির্দেশ পালন করা তোমার জন্যে অবশ্য কর্তব্য। এমনকি তা যদি তোমার স্বার্থহানি ঘটায় বা তোমার প্রতি অবিচারমূলকও হয়।
—আবু হুরায়রা (রা); মুসলিম

৪৬০.
নীতিবান শাসক বা ন্যায়নিষ্ঠ নেতাকে যে অসম্মান করবে আল্লাহ তাকে লাঞ্ছিত করবেন।
—আবু বদর (রা); তিরমিজী

৪৬১.
তোমরা সঙ্ঘবদ্ধ থাকো। সঙ্ঘের সাথে আল্লাহর রহমত থাকে। যে সঙ্ঘ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়, সে জাহান্নামে নিক্ষিপ্ত হয়।
—আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা); তিরমিজী

৪৬২.
সঙ্ঘবদ্ধ থাকাটাই রহমতের। আর বিচ্ছিন্নতা ও নিঃসঙ্গতা হচ্ছে আজাবের।
—নোমান ইবনে বশীর (রা); আহমদ

৪৬৩.
তোমরা সঙ্ঘবদ্ধভাবে জীবনযাপন করবে। প্রাজ্ঞ নেতার আদেশ-নিষেধ (নিয়মকানুন) মেনে চলবে। সঙ্ঘ থেকে বিচ্ছিন্ন হবে না। সমর্পিতদের সঙ্ঘ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া ইসলামের সাথে বন্ধন ছিন্ন করার শামিল।
—হারেস আল আশয়ারী (রা); তিরমিজী, আহমদ

৪৬৪.
আল্লাহ এমন কোনো নবী বা খলিফা প্রেরণ করেন নি, যাকে তিনি (অন্তরে) দুজন পরামর্শক দেন নি। একজন তাকে ধর্মপরায়ণ হতে ও পুণ্যের কাজ করতে বলে এবং অন্যায় করতে নিষেধ করে। আর দ্বিতীয় পরামর্শক শুধু তাকে অন্যায়ের পথে তাড়িত করে। যে নিজেকে এই বদ পরামর্শক হতে রক্ষা করতে পারে, সে অন্যায় থেকে রক্ষা পায়।
—আবু সাঈদ খুদরী (রা), আবু হুরায়রা (রা); বোখারী, তিরমিজী, হাকেম

৪৬৫.
তিন জন যদি একত্রে সফর করো, তাহলে সকল ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব দিয়ে একজনকে নেতা মনোনীত করো।
—আবু সাঈদ খুদরী (রা); আবু দাউদ, মুসলিম

৪৬৬.
তিন জন একসাথে থাকলে অবশ্যই একজনকে নেতা মনোনীত করবে।
—আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা); আহমদ

৪৬৭.
যে ব্যক্তি সঙ্ঘ থেকে এক বিঘত দূরে সরে গেল, সে তার বিশ্বাসের মালা গলা থেকে নিজেই খুলে ফেলল।
—আবু যর গিফারী (রা); আবু দাউদ

৪৬৮.
যে ব্যক্তি বায়াতের বন্ধন (সঙ্ঘ ও নেতার প্রতি আনুগত্যের শপথ) ছাড়া মারা গেল, সে জাহেলিয়াতের মৃত্যুবরণ করল।
—আবদুল্লাহ ইবনে ওমর (রা); মুসলিম

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই শাখার আরো সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © RMGBDNEWS24.COM