1. [email protected] : আরএমজি বিডি নিউজ ডেস্ক :
  2. [email protected] : Emon : Armanul Islam
  3. [email protected] : musa :
বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৩১ অপরাহ্ন

প্রার্থনা ও দান!!

  • সময় শনিবার, ১৯ জুন, ২০২১
  • ২০৬ বার দেখা হয়েছে

প্রার্থনা ও দান!!

মিসেস মিলি খুব ভোরে ঘুম থেকে উঠে সকাল বেলার প্রয়োজনীয় কাজ সেরে নিলেন। আজ তার খুবই তাড়া বাড়ির সবাই সেটা জানে। তিনি গতকাল রাতেই ঈদে তার ছেলে যে শাড়িটি দিয়েছিলো সেটি নামিয়ে রেখেছিলেন। শাড়ির ভাজ ভাঙ্গা হয় নি। শুক্রবারের সাদাকায়নে পড়ে যাবেন তাই তিনি স্ব-যতনে শাড়িটি রেখে দিয়েছিলেন। চোখে-মুখে খুবই উৎফুল্লভাব, অনেকদিন পর প্রিয় মানুষগুলোর সাথে দেখা হবে। ঠিক সকাল পৌনে নয়টায় তিনি শাখায় পৌঁছলেন। এরই মধ্যে অনেকেই চলে এসেছেন। সবার সাথে ঈদরে শুভেচ্ছা বিনিময় হলো। ঈদুল ফিতরের আনন্দ আমেজ কাটতে না কাটতেই আরেক ঈদের আনন্দ অনুভূতিতে সবাই সঞ্জীবিত হলো।

বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই শুরু হয়ে যায় সংযোগায়ন এবং সাদাকায়নের জন্যে নেওয়া হয় বিশেষ প্রস্তুত্তি । সকাল সোয়া নয়টায় সঞ্চালক সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়ে আজকের সাদাকায়নের সূচনা করেন। শারীরিক-মানসিক, পারিবারিক, আর্থিক-পারিপার্শ্বিক বিভিন্ন সমস্যার জন্যে অনেকেই হিলিংয়ে নাম দিয়ে থাকেন।

শুরুতেই তাদের দোয়ার জন্যে হিলিং পাঠ করা হয়। তারপর সকাল ৯.৩০ মিনিটে পার্থিব সববিষয় ভুলে গিয়ে সকলেই ধ্যানের গভীর আত্মনিমগ্ন হলেন। মেডিটেশন শেষে, সবাই সমস্বরে বলে উঠল, ‘বেশ ভালো লাগছে, বেশ-বেশ ভালো লাগছে’। চমৎকার অনুভূতিময় সময় অতিবাহিত করলো সবাই।

এরপর আলোচনা পর্ব। আজকের সাদাকায়নে আলোচ্য বিষয়টি ছিলো, “রোগ ও সমস্যা মুক্তির জন্যে প্রার্থনা ও দান”। প্রথমেই সম্মানিত আলোচক হিলিংয়ে নাম দিয়ে নিরাময় লাভ করেছেন এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল হয়েছেন তার পরিচিত এমন কয়েকজনের সাফল্যের বর্ণনা করেন। তিনি বলেন, নিরাময়ের সাথে প্রার্থনার গভীর সম্পর্ক রয়েছে এবং দান বিভিন্ন বালা মুছিবত দূর করে সাফল্যের পথকে ত্বরান্বিত করে।

জীবন চলার পথে প্রতিনিয়ত আমাদের বিভিন্ন ধরনের রোগ-শোক ও সমস্যা মোকাবেলা করতে হয়। অনেক সময় আমরা ঠিক বুঝে উঠতে পারি না কীভাবে এগুলো থেকে নিজেদের মুক্ত করতে পারবো। এসব রোগ থেকে, সমস্যা থেকে মুক্তির জন্যে যথাযথ পদক্ষেপের পাশাপাশি আমরা যদি নিয়মিত প্রার্থনা ও দানে নিজেদের অভ্যস্ত করতে পারি তাহলেই মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

আসলে প্রার্থনা যদি একাগ্রচিত্তে করা হয় তাহলে তা মানুষের রোগ-শোক, সমস্যামুক্তিতে ভূমিকা রাখতে পারে। প্রার্থনা সম্পর্কে সূরা আল-মুমিনের ৬০ নম্বর আয়াতে বলা হয়েছে, ‘আমাকে ডাক, আমিই তোমাদের দোয়া কবুল করবো।’ পবিত্র বাইবেলে বলা হয়েছে-যীশু বললেন, ‘প্রার্থনায় যা কিছু তোমরা চাও, বিশ্বাস করবে তা পেয়েছো, তাহলে তা-ই পাবে।’ [মার্ক ১১:২৪]।

তিনি তার আলোচনায় নিরাময়ের তিনটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের কথা উল্ল্যেখ করেছেন-

১.ধ্যানের স্তরে মমতাপূর্ণ প্রার্থনা। ধ্যানের স্তরে মমতাপূর্ণ প্রার্থনার কারণে কোয়ান্টাম হিলিংয়ে নাম দিয়ে লাখো মানুষ নিরাময় লাভ করেন বা সমস্যা থেকে মুক্তি পান। আসলে প্রার্থনা যে সমস্যামুক্তিতে, নিরাময়ে ভূমিকা রাখে এ প্রসঙ্গে নবীজী (স) বলেছেন, প্রতিটি রোগের নিরাময় রয়েছে। নিরাময়ের জন্যে ওষুধ ছাড়াও তিনি দোয়ার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। মহামতি বুদ্ধ বলেছেন, প্রার্থনা দেহকে ব্যাধিমুক্ত করে। ঋগ্বেদে রোগ-ব্যাধি ও পঙ্গুত্ব থেকে মুক্ত থাকার জন্যে প্রার্থনাকে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

২. সাদাকা একাগ্র প্রার্থনার সাথে যদি দানকেও যুক্ত করা যায় তাহলে প্রার্থনার সুফল আরো ভালোভাবে পাওয়া যায়। মহানবী (সাঃ)বলেছেন, ‘‘দান অকল্যানের ৭০টি দরজা বন্ধ করে দেয়’’। সামর্থ্য অনুসারে সকলেরই দান করা উচিত।

৩. বিশ্বাস বিশ্বাস নিরাময়ের এক অপরিহার্য অনুষঙ্গ। এমনকি ওষুধ বা সার্জারিও যে কার্যকর হয়, তার মূল কারণ রোগীর বিশ্বাস। প্রার্থনার মাধ্যমে রোগীর মধ্যে যখন বিশ্বাস সঞ্চারিত হয়, তখন শুরু হয় রোগমুক্তির প্রক্রিয়া।

১৯৯৫ সালে ডার্টমাউথ মেডিকেল স্কুলে ওপেন হার্ট সার্জারি করা হয়েছে এমন ২৩২ জন রোগীর ওপর জরিপ চালিয়ে দেখা যায়, যারা তাদের নিরাময়ের জন্যে স্রষ্টার ওপর বিশ্বাস করতেন অপারেশনের ছয় মাস পরে অন্যদের তুলনায় তাদের বেঁচে থাকার হার ৩ গুণ বেশি।

এজন্যে যিনি যত বিশ্বাস নিয়ে নাম দেবেন তার নিরাময় প্রক্রিয়া তত কার্যকরী হবে। তবে বিশ্বাস এটি অবশ্যই ১০০ ভাগ হতে হবে। পরিপূর্ণ বিশ্বাস নিয়ে যখন প্রাথর্নাকারী এবং প্রার্থনাকবুলকারী একাকার হয়ে যান তখনই নিরাময় প্রক্রিয়া তরান্বিত হয়।

পরম করুণাময়ের কাছে শুকরিয়া কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন আমাদের জন্যে যে চমৎকার সুযোগ করে দিয়েছেন তা গ্রহণ করে, যে কারো কল্যাণ কামনায়, সমস্যামুক্তিতে, রোগ নিরাময়ের আবার পেশায় ভালো করার জন্যে, ব্যবসায় উন্নতি বা শিক্ষার্থী হলে কাঙ্ক্ষিত রেজাল্ট লাভ-অর্থাৎ জীবনের যেকোনো কল্যাণ প্রত্যাশায় আমরা কোয়ান্টাম হিলিং-এ নাম দিতে পারি। নিজে ভালো থাকার পাশাপাশি সমস্যাক্রান্তদের হিলিং দেওয়ার ব্যাপারে উদ্বুদ্ধ করে আমরা তাদের কল্যান কামনা করতে পারি।

এরপর সকলের জন্যে সুস্থ দেহ প্রশান্ত মন কর্মব্যস্ত সুখী জীবনের প্রার্থনা করে আলোচনা সমাপ্তি করেন।

 

শেয়ার করুন

এই শাখার আরো সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © RMGBDNEWS24.COM
Translate »