1. [email protected] : আরএমজি বিডি নিউজ ডেস্ক :
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১০:৪৬ পূর্বাহ্ন

স্বামীর একটু ভালবাসা পাওয়ার আশায় কতদিন ডুকরে ডুকরে কেঁদেছি।

  • সময় বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১০১৬ বার দেখা হয়েছে
১৫ বছর ধরে সংসার করছি। স্বামীর একটু ভালবাসা পাওয়ার আশায় কতদিন ডুকরে ডুকরে কেঁদেছি। কিন্তু সে চলছে তার নিজের মতো। যেন অটোসাজেশন দিয়ে রেখেছে—আমাকে বিশ্বাস করবে না, মর্যাদা দেবে না। মনে হয়, সে আছে এই দুনিয়ায় আর আমি পড়ে আছি দূর সাইবেরিয়ায়। এত কষ্ট আর সহ্য হয় না।
আপনি তো কবি হলে খুব ভালো কবিতা লিখতেন, ‘সে আছে এই দুনিয়ায়, আপনি পড়ে আছেন দূর সাইবেরিয়ায়’। আসলে সমস্যাটা আপনার স্বামীর না, সমস্যাটা আপনার। আপনি যেভাবে চাচ্ছেন, সেভাবে পাচ্ছেন না। আপনি অটোসাজেশন দিয়ে রেখেছেন যে, আমার স্বামী আমাকে মর্যাদা দেবে না। মর্যাদা দিচ্ছে না। এ দৃষ্টিভঙ্গিটাই আপনাকে বদলাতে হবে।
স্বামীর সাথে থাকার কোনো অবস্থাই যদি না থাকত, তাহলে আপনি ১৫ বছর তার সাথে আছেন কীভাবে? বলবেন যে, বাধ্য হয়ে আছি। যদি বাধ্য হয়েই থাকতে হয়, তাহলে এই থাকাটাকে আনন্দদায়ক করে ফেলুন না! এখন থেকে মেডিটেশনে কমান্ড সেন্টারে স্বামীকে নিয়ে আসবেন।
স্বামী বাস্তবে যে-রকম আচরণই করুক, আপনি তার কাছ থেকে যে আচরণ পেতে চান, যে কথাগুলো শুনতে চান, মেডিটেশনে বার বার স্বামীর মুখ দিয়ে সেই কথাগুলোই বলাবেন। ভাববেন, আমার স্বামী আমাকে ভালবাসে, আমাকে মর্যাদা দিচ্ছে, আমাকে সম্মান করছে। আগামী ছয় মাস দুবেলা এই চর্চাটা চালিয়ে যান। ইনশাল্লাহ পরিস্থিতি বদলে যাবে।
আসলে আপনার এখনকার অবস্থাটা কী? স্বামীর কথা যখনই ভাবছেন, আপনার মধ্যে নেতিবাচক চিন্তা চলে আসছে। এটা শুধু স্বামী না, অফিসের ব্যাপারেও এরকম হতে পারে। অনেকের ধারণা যে, আমার বস আমাকে পছন্দ করে না। বস অমুককে পছন্দ করে, অমুককে কাজ দেয়, অমুককে মর্যাদা দেয়। আমাকে গুরুত্ব দেয় না, আমাকে মর্যাদা দেয় না। সমস্যাটা কিন্তু বসের না, যে এমনটা ভাবছে—সমস্যা তার।
যখনই আপনি যে-কারো সম্পর্কে—সে বন্ধু হতে পারে, সন্তান হতে পারে, মা-বাবা হতে পারে, ব্যবসায়িক পার্টনার হতে পারে—মনে করছেন যে, আমাকে দেখতে পারছে না বা তার সাথে আমার এডজাস্টমেন্ট হচ্ছে না, তার সাথে মিল হচ্ছে না, বুঝবেন যে সমস্যাটা আপনার।
কারণ আপনি তখন তার ব্যাপারে নেতিবাচক চিন্তাগুলোই করছেন। যেমন, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে যখন ঝগড়া হয়, তখন ১৫ বছরের সংসারে কী কী খারাপ কাজ উনি করেছেন, কত কষ্ট আপনাকে দিয়েছেন, সেগুলোই মনে পড়তে থাকে। নিজেদের ভালো স্মৃতিগুলো তখন আর মনে আসে না।
চিন্তার চ্যানেলটা বদলে দিন। যখনই তার সম্পর্কে চিন্তা আসছে, সাথে সাথে ভালো চিন্তা করুন। তিনি কোন দিন আপনার সাথে একটু ভালো ব্যবহার করেছেন, সেই চিন্তা করুন। অমুক দিন একটু ভালো ব্যবহার করেছিল, অমুক দিন পুরো না হাসলেও একটু মুচকি হেসেছিল, সেটা চিন্তা করুন। অর্থাৎ ভালো ভালো চিন্তা করুন।
তাহলে কী হবে? এই যে আপনি তার সাথে ঝগড়া করছেন না, তার সম্পর্কে ভালো চিন্তা করছেন—এই চিন্তা তাকে প্রভাবিত করবে। তার মনকে আপনার দিকে আকর্ষণ করবে। কর্মজীবনে, শিক্ষাজীবনে—সব ক্ষেত্রেই এটা সত্যি।

শেয়ার করুন

এই শাখার আরো সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © RMGBDNEWS24.COM
Translate »