1. admin@hostpio.com : আরএমজি বিডি নিউজ ডেস্ক :
  2. azmulaziz2021@gmail.com : Emon : Armanul Islam
  3. musa@informationcraft.xyz : musa :
মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশে প্রতিদিন গড়ে ৩০ জন মানুষ আত্মহত্যা করে

  • সময় সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৩৮ বার দেখা হয়েছে
অনলাইন আসক্তি, সমাজ বিচ্ছিন্নতা ইত্যাদি কারণে আমাদের এখানেও এখন এই নিঃসঙ্গতা, একাকীত্ব এবং তার পরিণতিতে আত্মহত্যার মতো চরম প্রবণতা বাড়ছে দিনকে দিন।
১০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ বিশ্ব আত্মহত্যা প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানা যায়, আমাদের দেশে প্রতিদিন গড়ে ৩০ জন মানুষ আত্মহননের পথ বেছে নেয়। এর মধ্যে নারী-পুরুষ-শিশু সব বয়সের মানুষই রয়েছে।
আর এই বিচ্ছিন্নতা, একাকীত্বের চরম রূপ আমরা দেখলাম এবার করোনাকালে। আতঙ্কবাদীরা এমনভাবে আতঙ্ক প্রচার করল, যাতে এমনকি পরিবার পরিজনকেও আমরা দূরে ঠেলে দিতে বাধ্য হই।
খোদ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রচারিত বিজ্ঞাপনে লেখা হলো-সেভ হিউম্যানকাইন্ড বাই রিয়েলি রিয়েলি নট গেটিং নিয়ার ইট। সাথে নিঃসঙ্গ একটি শিশুর ছবি!
প্রতিকার-
তাহলে প্রতিকার কী? বিশেষজ্ঞরা বলছেন কয়েকটি প্রতিকারের কথা-
বাস্তব যোগাযোগ বাড়াতে হবে। আত্মীয়-বন্ধু-প্রতিবেশী-প্রিয়জনদের সাথে নিয়মিত দেখা করতে হবে, কথা বলতে, তাদের বাড়িতে বেড়াতে যেতে হবে। তাদেরকেও আপনার বাড়িতে আসতে বলতে হবে।
মনে রাখবেন সোশ্যাল মিডিয়ায় বন্ধুদের খবর রাখছেন বা ভিডিও কলে আত্মীয়দের সাথে কথা বলছেন-এটা বাস্তব যোগাযোগ নয়।
কনট্যাক্ট নয় কানেকশন- স্বামী বিবেকানন্দের ঘটনা
সন্তানদের সঙ্গে একাত্মতা বাড়াতে হবে। আসলে ‘কন্ট্যাক্ট’ আর ‘কানেকশন’- যোগাযোগ আর একাত্মতা এক নয়। এ প্রসঙ্গে স্বামী বিবেকানন্দের চমৎকার একটি ঘটনা আছে।
বাংলার কৃতি সাধক স্বামী বিবেকানন্দ এখন থেকে সোয়াশ’ বছর আগে নিউইয়র্কে যখন ভ্রমণ করছিলেন তখন একজন সাংবাদিক তার কাছে এলেন।
স্বামীজী খুব চমৎকার ইংরেজি বলতেন। তার এক বক্তৃতার উদ্ধৃতি দিয়ে সাংবাদিক জিজ্ঞেস করলেন-
আপনি বলছিলেন, কন্টাক্ট এবং কানেকশন.. আমি দ্বিধায় আছি। একটু যদি ব্যাখ্যা করেন!
স্বামীজী হাসলেন। আপাতদৃষ্টিতে নজর অন্যদিকে ঘুরিয়ে বললেন, আপনি নিউইয়র্কে থাকেন? বাড়িতে কে কে আছেন?
সাংবাদিক ভাবলেন, তিনি প্রশ্নটা এড়িয়ে যেতে চাইছেন। তাই এরকম ব্যক্তিগত প্রশ্ন করছেন।
তবুও বিরক্তি চেপে রেখে সাংবাদিক বললেন, মা মারা গেছেন। বাবা আছেন। আর তিন ভাই ও এক বোন। সবাই বিবাহিত।
স্বামীজী মৃদু হেসে বললেন, বাবার সাথে শেষ কবে কথা হয়েছে? বিরক্তি চেপে সাংবাদিক বললেন, মাসখানেক হবে।
স্বামীজী জিজ্ঞেস করলেন, ভাইবোনের সাথে দেখা হয়? শেষ কবে ফ্যামিলি গেট টুগেদার হয়েছে?
সাংবাদিক অনেকটা অপ্রস্তুত হয়ে বললেন, দু’বছর আগে ক্রিসমাসের সময়। সবাই দুদিন একসাথে কাটিয়েছি।
স্বামীজী জিজ্ঞেস করলেন, বাবার পাশে বসে ছিলেন কতক্ষণ? আপনারা কি একসাথে ব্রেকফাস্ট, লাঞ্চ, ডিনার করেছিলেন?
মা মারা যাবার পর আপনার বাবা কীভাবে সময় কাটাচ্ছেন জিজ্ঞেস করেছিলেন?
এবার সাংবাদিকের চোখ অশ্রুসিক্ত হয়ে গেল।
স্বামীজী এবার তার হাত ধরে বললেন, আমি দুঃখিত আপনাকে অজান্তে আঘাত দিয়ে থাকলে। আসলে এটাই আপনার প্রশ্নের উত্তর!
বাবার সাথে আপনার কন্টাক্ট মানে যোগাযোগ আছে। কিন্তু কানেকশন নাই। একাত্মতা নাই।
কানেকশন একাত্মতা সংযুক্তি- এটা হৃদয়ে হৃদয়ে হয়, একসাথে বসা, খাবার ভাগাভাগি করে খাওয়া, একে অপরের খেয়াল রাখা, স্পর্শ করা, একসাথে সময় কাটানো।
আপনাদের সব ভাইবোনের মাঝে যোগাযোগ আছে। কিন্তু কানেকশন নাই, একাত্মতা নাই। সংযুক্তি নাই।
সাংবাদিক চোখ মুছে বললেন, আপনার এই অবিস্মরণীয় শিক্ষার জন্যে আপনাকে ধন্যবাদ।
তো আপনার সন্তানের সঙ্গে এক বাড়িতে এক ছাদের নিচে থেকেও তার সাথে আপনার কানেকশন মানে একাত্মতা নাও থাকতে পারে।
তাই সন্তানের সাথে মিশে যান। বন্ধুর মতো তার সমস্যা, কষ্ট, সংকটগুলো বুঝতে চেষ্টা করুন। দেখবেন অনেক জটিলতা কেটে গেছে।
খেলাধূলা, সৃজনশীল কাজ ও মেলামেশা
সারাক্ষণ পড়াশোনার কথা না বলে খেলাধূলা, সৃজনশীল হাতের কাজ, অন্য শিশুদের সঙ্গে মেলামেশা- ইত্যাদির ব্যবস্থা করে দিতে হবে।
সন্তানকে চাপ মোকাবেলা করতে শেখাতে হবে। ব্যর্থতা মেনে নেয়া নিজেরাও শিখতে হবে, সন্তানকেও শেখাতে হবে। ব্যর্থতা জীবনের অংশ এটা বোঝাতে হবে।
ধ্যান, সেবা ও সৎসঙ্ঘে একাত্মতা
নিয়মিত মেডিটেশন করতে হবে এবং সন্তানকেও মেডিটেশন শেখাতে হবে। জীবনের প্রতি ইতিবাচকতা, কৃতজ্ঞতা এবং আত্মবিশ্বাস তাতে অনেক বেড়ে যাবে।
সৎসঙ্ঘে একাত্ম হওয়ার শিক্ষা দিতে হবে।
মানুষের জন্যে সেবাকাজ, কল্যাণ কাজে সম্পৃক্ত হওয়ার মধ্যে যে তৃপ্তি ও আনন্দ আছে তা বিষণ্নতাকে ভাসিয়ে দেয়ার জন্যে যথেষ্ট।

শেয়ার করুন

এই শাখার আরো সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © RMGBDNEWS24.COM