1. [email protected] : আরএমজি বিডি নিউজ ডেস্ক :
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৬ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রপ্তানি ট্রফি লাভকারি হামীম গ্রুপের প্রতিষ্ঠান রিফাত গার্মেন্টস কোটাবিরোধী ছাত্র আন্দোলনে থমকে আছে সারাদেশ হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে যেসব মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও প্রেসিডেন্ট প্রার্থীরা ভক্তদের কাঁদিয়ে ফুটবল থেকে বিদায় নিচ্ছেন দি মারিয়া কাল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন হেপাটাইটিসে আক্রান্ত ৭০ হাজারের বেশি মানুষ পুলিশও মামলা করলো কোটা আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের সাথে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বৈঠক সংসদে আইন পাস না করা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে রাষ্ট্রপতির জেলায় এসপি হিসেবে দায়িত্ব পেলেন মো. আ. আহাদ

অর্গানিক ফুড কি আসলেই অর্গানিক?

  • সময় বৃহস্পতিবার, ৯ জুন, ২০২২
  • ৫০০ বার দেখা হয়েছে

বাজার সয়লাব অর্গানিক খাবারে। স্বাস্থ্যসচেতন মানুষ, যাদের আর্থিক সঙ্গতি মোটামুটি, নিরাপদ খাবারের নিশ্চয়তা পেতে একটু বেশি দামে হলেও কিনছে অর্গানিক খাবার। কিন্তু অর্গানিক ফুড নামে যত খাবার এখন বাজারে তার কয় শতাংশ অর্গানিক?

অর্গানিক খাবার কী?

জৈব খাদ্য বা অর্গানিক ফুড হলো সেসব খাবার যা উৎপাদনে কোনো ধরণের রাসায়নিক সার, এন্টিবায়োটিক, হরমোন বা কীটনাশক ব্যবহৃত হয়নি। এগুলো সারবিহীন অথবা জৈব সার ব্যবহার করে প্রাকৃতিকভাবে উৎপন্ন করা হয়।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

বাজারের অর্গানিক খাবারগুলো কতটুকু অর্গানিক?

খাদ্যপণ্যের গায়ে ‘অর্গানিক’ লেবেল থাকা মানেই যে সেগুলোতে কীটনাশক বা বালাইনাশক ব্যবহৃত হয় নি তা কিন্তু না! দ্য টেলিগ্রাফে ২৩৭টি গবেষণার রিভিউ নিয়ে একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়, যেখানে বলা হয়েছে বাজারের সব অর্গানিক খাদ্য শতভাগ কেমিকেলমুক্ত নয়।

গবেষণাটিতে সাধারণভাবে উৎপন্ন ফল ও সবজির চেয়ে অর্গানিক ফল ও সবজিতে মাত্র ৩০ ভাগ কীটনাশক কম পাওয়া গেছে।

শতভাগ অর্গানিক হওয়া কি সম্ভব?

অসম্ভব হয়তো না, তবে বেশ কঠিন। কেন কঠিন তা অর্গানিক হওয়ার মানদণ্ডগুলো জানলে আপনি সহজেই বুঝতে পারবেন।

বাংলাদেশ অর্গানিক প্রোডাকশন ম্যানুফ্যাকচারিং অ্যাসোসিয়েশনের মতে, জৈব প্রক্রিয়ায় চাষের জন্য প্রধানত পাঁচটি মানদণ্ড প্রয়োজনঃ

১. জমিকে কমপক্ষে ৩ বছর রাসায়নিকমুক্ত থাকতে হবে;

২. ১০ মিটার জমি রাসায়নিকমুক্ত হতে হবে;

৩. সার হতে হবে পরিবেশ বান্ধব;

৪. সেচ নিরাপদ হওয়া দরকার; এবং

৫. বীজও অর্গানিক হতে হবে।

অর্থাৎ, চাষাবাদে রাসায়নিক সার অথবা কীটনাশক ব্যবহৃত হয় নি- কেবল এই দিকটিই একটি কৃষিপণ্যের অর্গানিক হওয়ার জন্যে যথেষ্ট নয়।

ধরুন, একটি গাভীকে সরাসরি কোনো হরমোন, স্টেরয়েড বা অন্য কোনো ক্ষতিকর কেমিকেল দেয়া হয় নি। কিন্তু একে যে তাজা ঘাস খেতে দেয়া হয়েছে সেগুলো উৎপাদনে কেমিকেল ব্যবহৃত হয়েছে। এই গাভীর দুধ ও মাংস শতভাগ অর্গানিক নয়!

একইভাবে বিলের মাছও অর্গানিক হবে না যদি এর পাশে কোনো শস্যক্ষেত থাকে যেখানে রাসায়নিক সার ব্যবহৃত হয়েছে এবং বৃষ্টির সাথে সেই সার ধুয়ে বিলের পানিতে মিশেছে।

‘অর্গানিক খাবার অনেক বেশি স্বাস্থ্যসম্মত’

বিজ্ঞানীদের মতে এটি একটি ভুল ধারণা।

স্ট্যানফোর্ড সেন্টার ফর হেলথ পলিসির শিক্ষক ড. কৃস্টাল স্মিথ-স্প্যাঙ্গলার বলেন, ‘কেউ কেউ বিশ্বাস করেন অর্গানিক খাবার সবসময়ই অধিক স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর। বিস্ময়কর হলো আমরা (গবেষণায়) এমনটা দেখি নি!’

গবেষণাটি থেকে প্রাপ্ত ফলাফল হলো, অর্গানিক ও সাধারণ পণ্যে ভিটামিনের ব্যবধান নগণ্য। জৈব প্রক্রিয়ায় উৎপন্ন পণ্যে উচ্চমাত্রায় ফসফরাস পাওয়া গেছে- এ-প্রসঙ্গে গবেষকেরা বলছেন, খুব কম সংখ্যক মানুষ ফসফরাস স্বল্পতায় ভোগেন বিধায় অর্গানিক খাবারের এই দিকটির তাৎপর্য কম।

তাহলে কি অর্গানিক খাবার খাব না?

খেতে নিষেধ নেই। তবে যেহেতু ‘অর্গানিক’ লেবেলযুক্ত হলেই অর্গানিক হয় না, তাই যাচাইবাছাই করা জরুরি। এ-ধরণের পণ্য অনলাইনে কেনার বদলে সরাসরি দোকান থেকে নিজে দেখুশুনে কেনাই ভালো।

ক্ষতিকর কেমিকেল বা কীটনাশনমুক্ত খাবার খাওয়াই যদি একমাত্র উদ্দেশ্য হয় তাহলে অর্গানিক খাবার খেতে পারেন। কিন্তু ‘অধিক পুষ্টিগুণসমৃদ্ধ’- স্রেফ এই লেবেল দেখে বেশি দামে কেনা হবে নির্বুদ্ধিতা। কারণ মূলত আমাদের অর্গানিক খাবারের প্রতি অত্যধিক আগ্রহের কারণেই দেশে অর্গানিক পণ্যের এত দাম।

মিস. স্প্যাঙ্গলারের মতে, আমাদের বেশি বেশি ফল ও সবজি খেতে হবে, তা যে প্রক্রিয়ায়ই উৎপন্ন হোক না কেন। কারণ বেশিরভাগের খাদ্য তালিকায় এগুলোর ঘাটতি রয়েছে।

অর্থাৎ, অর্গানিক নন-অর্গানিক বাছবিচার করতে গিয়ে ফল ও সবজি খাওয়া একেবারে কমিয়ে দেয়া উচিত নয়।

শেয়ার করুন

এই শাখার আরো সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © RMGBDNEWS24.COM
Translate »