1. [email protected] : আরএমজি বিডি নিউজ ডেস্ক :
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ১১:৩১ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রপ্তানি ট্রফি লাভকারি হামীম গ্রুপের প্রতিষ্ঠান রিফাত গার্মেন্টস কোটাবিরোধী ছাত্র আন্দোলনে থমকে আছে সারাদেশ হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে যেসব মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও প্রেসিডেন্ট প্রার্থীরা ভক্তদের কাঁদিয়ে ফুটবল থেকে বিদায় নিচ্ছেন দি মারিয়া কাল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন হেপাটাইটিসে আক্রান্ত ৭০ হাজারের বেশি মানুষ পুলিশও মামলা করলো কোটা আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের সাথে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের বৈঠক সংসদে আইন পাস না করা পর্যন্ত আন্দোলন চলবে রাষ্ট্রপতির জেলায় এসপি হিসেবে দায়িত্ব পেলেন মো. আ. আহাদ

ফুটবল মুঘল ম্যারাডোনা- মারা গেলেন যিনি ঋণজর্জরিত অবস্থায়!

  • সময় বুধবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২২
  • ৩৪৬ বার দেখা হয়েছে

অপচয় এবং বিলাসিতার প্রতীক এখন ‘মোঘল’!

অপচয় কীভাবে একজনকে নিঃস্ব করে, আমরা একটা গল্প দিয়ে শুরু করি।

Thank you for reading this post, don't forget to subscribe!

‘মোঘল’ শব্দটা ইংরেজি ভাষায় চলেই এলো অপচয় এবং বিলাসিতার প্রতীক হিসেবে। যেমন, মিডিয়া মোঘল। এবং মোঘলরা খ্যাতি লাভ করল শুধুমাত্র অপচয় করে।

সম্রাট শাহজাহান একটা বাড়ি বানালেন। যে বাড়িতে কোনো জীবিত ব্যক্তি কখনো বসবাস করে নি। যে বাড়িতে দুটো লাশ অবস্থান করছে। ২০ হাজার লোক ২২ বছর পরিশ্রম করল। এবং হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ হলো। এবং কোনো জীবিত মানুষ এই বাড়িতে থাকল না।

মোঘল! “কেয়া থা! কেয়া হো গায়া”!

তারই উত্তর পুরুষ সম্রাট বাহাদুর শাহ’র নাতি, যখন সিপাহী বিপ্লবের দু’শো বছরপূর্তি প্রোগ্রাম হয়, নাইনটিন ফিফটি এইটে, তখন খোঁজা হলো যে, মোঘল সম্রাটদের বংশধরদের পাওয়া যায় কি না!

খুঁজতে খুঁজতে দুজনকে পাওয়া গেল। অনেক খুঁজে খুঁজে বের করল।

একজন কলকাতায় টাঙ্গা চালায়। টাঙ্গা বোঝেন? হাতে টানা রিকশার নাম হচ্ছে টাঙ্গা। আরেকজন দিল্লিতে ধোপার কাজ করে।

তো তাদের জিজ্ঞেস করা হলো যে, তোমরা পরিচয় দাও না কেন?

বলে, পরিচয় দিলে যে-ই পরিচয় শোনে তারা বলে, “কেয়া থা! কেয়া হো গায়া”। অর্থাৎ কী ছিল মোঘলরা, আর কী হলো মোঘলের অবস্থা?

ম্যারাডোনার মৃত্যুর সময় কী পাওয়া গেল?

ধরুন এই মোঘলদের অভাব কিন্তু যুগে যুগে কখনো হয় নাই।

যেরকম এই যুগের ফুটবল মোঘলের নাম হচ্ছে, ম্যারাডোনা। মারা গেলেন কয়েকদিন আগে।

কী অবস্থা? মানে রাষ্ট্র আর্জেন্টিনা তার মৃত্যুতে তিন দিনের শোক ঘোষণা করেছে। এবং তিনি কত টাকা উপার্জন করেছিলেন যখন ফুটবল খেলতেন। ফুটবল খেলোয়াড় হিসেবে সবচেয়ে নামীদামী খেলোয়াড় ছিলেন তিনি তার সময়কার।

এবং তার বিরুদ্ধে কর ফাঁকির অভিযোগই হচ্ছে, আমাদের টাকায় ৩৭১ কোটি টাকা। সেজন্যে মামলা হয়েছে।

এখন আয় কত করেছেন আর ফাঁকি কত দিয়েছেন- এটা আল্লাহ আলেমুল গায়েব ছাড়া কেউ বলতে পারবেন না! এবং উনি নিজেও বলতে পারবেন না। কারণ উনি নিজেও কোনো হিসাব রাখেন নাই। কারণ হিসাব রাখলেই তো আবার ট্যাক্স দিতে হবে।

তো মৃত্যুর সময় কী পাওয়া গেল? ঋণজর্জরিত এবং তার কাছে আছে মাত্র এক লক্ষ ডলার। আমাদের টাকায় এখন ৮৫ লক্ষ টাকা।

অপচয় যে-কোনো মোঘলকেই নিঃস্ব করে দেয়!

তাহলে? ম্যারাডোনা কেন নিঃস্ব হলো? এত উপার্জন করার পরে যার কর ফাঁকির মামলা হচ্ছে ৩৭১ কোটি টাকা আমাদের, সে এক কোটি টাকাও ব্যাংকে নিজের সঞ্চয় হিসেবে রেখে মারা যেতে পারল না!

এই হাইপার কনজিউমারিজম। কেনাকাটা করে।

সে তো কিছু করেছে। কী করেছে? কেনাকাটা করেছে।

এবং অতিরিক্ত কেনাকাটা করতে করতে নিঃস্ব হয়ে গেছে।

অপচয় যে-কোনো মোঘলকেই নিঃস্ব করে দেয়।

[কোয়ান্টামম সাদাকায়ন, ২৭ নভেম্বর, ২০২০]

শেয়ার করুন

এই শাখার আরো সংবাদ পড়ুন
All rights reserved © RMGBDNEWS24.COM
Translate »